Tuesday , September 22 2020

কৃষি খাস জমি ব্যবস্থাপনা ও বন্দোবস্ত নীতিমালা, পর্ব-৪

থানা কৃষি খাস জমি ব্যবস্থাপনা ও বন্দোবস্ত কমিটির কার্যপরিধিঃ

  • থানার আওতাধীন এলাকায় কৃষি খাস জমি চিহ্নিতকরণ ও উদ্ধারকরণ।
  • উদ্ধারকৃত কৃষি খাস জমিকে নীতিমালা অনুযায়ী বন্দোবস্ত প্রদানের সুবিধার্থে প্লট  বিভক্তিকরণ।
  • সরকারের কৃষি খাস জমি বরাদ্দ কর্মসূচী সম্পর্কে প্রচারের ব্যবস্থা গ্রহণ।
  • ভূমিহীনদের নিকট হতে দরখাস্ত আহবান এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি)এর মাধ্যমে দরখাস্ত গ্রহণ।
  • প্রাপ্ত দরখাস্ত বাছাই এবং নীতিমালা অনুযায়ী ভূমিহীনদের অগ্রাধিকার তালিকা প্রণয়ন।
  • নির্বাচিত ভূমিহীনদের জন্য খাস প্লট বরাদ্দ দেওয়া সম্পর্কে  সুপারিশ প্রদান।
  • বন্দোবস্তপ্রাপ্ত ভূমিহীনকে দখল প্রদান নিশ্চিতকরণ।
  • বন্দোবস্ত গ্রহীতা প্রাপ্ত জমি যথাযথভাবে ব্যবহার করছে কিনা, কেহ বন্দোবস্ত শর্তাবলী সঠিকভাবে প্রতিপালন করছে কিনা সে সম্পর্কে তদারকী ও শর্তভঙ্গ করলে জেলা প্রশাসকের নিকট বিধিগত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সুপারিশ করা।
  • সরকার কর্তৃক প্রদত্ত অন্যান্য সকল দায়িত্ব প্রতিপালন।

ভূমিহীন পরিবারের অগ্রাধিকার তালিকাঃ

  • দুঃস্থ মুক্তিযোদ্ধা পরিবার৷
  • নদী ভাংগা পরিবার (যার সকল জমি ভেঙ্গে গিয়েছে)
  • সক্ষমপুত্রসহ বিধবা বা স্বামী পরিত্যাক্তা পরিবার৷
  • কৃষি জমিহীন ও বসতবাটিহীন পরিবার।
  • অধিগ্রহণের ফলে ভূমিহীন হয়ে পড়েছে এমন পরিবার৷
  • ১০ শতাংশ বসতবাটি আছে কিন্তু কৃষিযোগ্য জমি নেই এমন কৃষি নির্ভর পরিবার।
  • এই নীতিমালা জারীর এক মাসের মধ্যে জাতীয় কৃষি খাসজমি ব্যবস্থাপনা নির্বাহী কমিটি গঠন করতে হবে৷ ভূমি মন্ত্রণালয় এ কার্যক্রম গ্রহণ করবেন৷
  • নীতিমালা জারীর এক মাসের মধ্যে জেলা কৃষি খাসজমি ব্যবস্থাপনা ও বন্দোবস্ত কমিটি গঠন করতে হবে৷ এই ব্যাপারে জেলা প্রশাসক প্রয়োজনীয় কার্যক্রম গ্রহণ করবেন৷
  • এই নীতিমালা জারীর এক মাসের মধ্যে থানা কৃষি খাস জমি ব্যবস্থাপনা ও বন্দোবস্ত কমিটি গঠন করতে হবে৷ এই ব্যাপারে থানা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন৷

Check Also

যে সকল দলিল রেজিস্ট্রেশনের জন্য বাধ্যতামূলক নয়

যে সকল দলিল রেজিস্ট্রেশনের জন্য বাধ্যতামূলক নয় যদিও ১৯০৮ সালের রেজিস্ট্রেশন এক্টে বলা হয়েছে যে …

আপনার ডিভাইসে ইন্টারনেট সংযোগ চালু করুন।